চলচ্চিত্র সমালোচনা
ছবি তথ্য   আমেরিকা   দ্য প্রেস্টিজ

 

দ্য প্রেস্টিজ
পরিচালক: ক্রিস্টোফার নোলান
কলাকুশলী: হিউ জ্যাকম্যান, ক্রিশ্চিয়ান বেল, স্কারলেট জোহানসন, রেবেকা হল
সাল: ২০০৬
দেশ: যুক্তরাষ্ট্র
রেটিং: ৩/৫

 

নোলানের ম্যাজিক যেন

  সিনেঘর ওয়েব দল

১২ এপ্রিল, ২০১৯

প্রতিটি ম্যাজিকের তিনটি গুরূত্বপূর্ণ অংশ থাকে। প্রথম অংশকে বলা হয় ‘দ্য প্লেজ’, যেখানে ম্যাজিশিয়ান আপনাকে সাধারণ কিছু দেখান। পরের অংশ ‘দ্য টার্ন’, যেখানে ম্যাজিশিয়ান সেই সাধারণ কিছু দিয়েই করে দেখান কোন অসাধারণ কিছু। শেষের ধাপ হচ্ছে সেই ম্যাজিকের সবচেয়ে গুরূত্বপূর্ণ অংশ, ‘দ্য প্রেস্টিজ’। এই ধাপেই আগের ধাপে হারিয়ে যাওয়া কোনকিছু দর্শকের সামনে আবার নিয়ে আসা হয়। যা দেখে দর্শক হাততালি দেন।

‘দ্য প্রেস্টিজ’ ২০০৬ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত খ্যাতনামা পরিচালক ক্রিস্টোফার নোলান পরিচালিত সিনেমা। ক্রিস্টোফার প্রিস্ট রচিত বই থেকে সিনেমার স্ক্রিপ্ট লিখেছেন ক্রিস্টোফার নোলান এবং তার ভাই জোনাথন নোলান। প্রযোজনায় ছিলেন এমা থমাস, এরন রাইডার এবং নোলান নিজে। প্রধান দুই চরিত্র রবার্ট অ্যাঞ্জিয়ার ও আলফ্রেড বর্ডেনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন যথাক্রমে হিউ জ্যাকম্যান এবং ক্রিশ্চিয়ান বেল। পার্শ্বচরিত্রে ছিলেন মাইকেল কেইন, স্কারলেট জোহানসন এবং রেবেকা হল।

দ্য প্রেস্টিজ ব্রিটিশ-আমেরিকান চলচ্চিত্র। সিনেমার প্রথমেই অ্যাঞ্জিয়ারকে খুনের দায়ে বর্ডেনকে কাঠগড়ায় দেখা যায়। নোলানের নিজস্ব ঢঙে গল্প বর্তমান থেকে অতীতে চলে আসে। একসময় একসাথে কাজ করা অ্যাঞ্জিয়ার এবং বর্ডেন ম্যাজিকের এক মারাত্মক ভুলের কারণে একজন আরেকজনের প্রতিদ্বন্দ্বীতে পরিণত হয় এবং যা পরবর্তীতে শত্রুতায় রূপ নেয়। শত্রুতা এমন দিকে ধাবিত হয় যে একজন আরেকজনের ম্যাজিক ট্রিকস নষ্ট করার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করতে থাকে এবং এতে তাদের জীবন সংশয়ও হয়। অ্যাঞ্জিয়ার সবচেয়ে ভাল ম্যাজিশিয়ান না হলেও তার উপস্থাপনা ছিল অনবদ্য। অন্যদিকে বর্ডেন ম্যাজিশিয়ান হিসেবে যথেষ্ট প্রতিভাবান হলেও তার উপস্থাপনায় ত্রুটি ছিল। গল্পের এক পর্যায়ে বর্ডেন নতুন ম্যাজিক উপস্থাপন করেন যা অ্যাঞ্জিয়াররের মতে তার দেখা সবচেয়ে ভাল ম্যাজিক। নিজস্ব উপস্থাপনার গুনে অ্যাঞ্জিয়ার নিজেই ম্যাজিকটি দেখিয়ে সাফল্য পেলেও ম্যাজিকের ট্রিকের কারণেই প্রেস্টিজ হিসেবে সে কখনোই দর্শকের সামনের আসতে পারছিলো না। যা তাকে কুরে কুরে খায়। এখান থেকে সিনেমার গল্প নতুন দিকে মোড় নেয় এবং গল্পের প্রয়োজনে সেখানে দেখা পাওয়া যায় জনপ্রিয় উদ্ভাবক নিকোলা টেসলার। সিনেমাতেই টমাস এডিসনের সাথে নিকোলা টেসলার প্রতিদ্বন্দ্বিতার হালকা ঝলকও পাওয়া যায়।

লেখার প্রথমেই ম্যাজিকের ব্যাপারে যা বলা হয়েছে ‘দ্য প্রেস্টিজ’ সিনেমাটি হলো সেই ম্যাজিক। বর্তমানের সাথে অতীতের স্মৃতি, ডায়েরির পাতায় লেখা গল্প, পারস্পরিক দ্বন্দ্ব আর টুইস্টে ভরপুর সিনেমা দেখিয়ে দর্শককে প্রস্তুত করা হয় ম্যাজিকের সবচেয়ে গুরূত্বপূর্ণ অংশ প্রেস্টিজের জন্য। শেষটা দেখে হাততালি নাও দিতে পারেন কিন্তু তৃপ্তি পাবেন তা নিশ্চিত। সিনামাটি না দেখে থাকলে অবশ্যই দেখুন ক্রিস্টোফার নোলান নামক ম্যাজিশিয়ানের ম্যাজিক দেখার জন্য, হিউ জ্যাকম্যান আর ক্রিশ্চিয়ান বেলের অনবদ্য অভিনয়ের প্রশংসা করার জন্য।

চলচ্চিত্র সমালোচক: সৈয়দ একরামুল রাব্বী
পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগ, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
চলচ্চিত্র সমালোচনাটি মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ফিল্ম সোসাইটি আয়োজিত মুভি রিভিউ প্রতিযোগিতায় পুরস্কারজয়ী।






 খুঁজুন