সবার প্রিয় হয়ে ওঠার স্বাদ আগে বুঝতেন না রাশমিকা মন্দানা। এই মুহূর্তে তাঁকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত কেবল বলিপাড়া নয়, গোটা দেশ। সাফল্যের মধ্যগগনে নায়িকা। তবু জানালেন, শেখা এখনও শেষ হয়নি তাঁর।

নতুন ছবি ‘গুডবাই’-এর গান মুক্তির দিন দিল্লিতে এসেছিলেন নায়িকা। জানালেন, রাজধানীতে এ নিয়ে দ্বিতীয় বার এলেন। আর এসে বুঝলেন জাতীয় ‘ক্রাশ’ হয়ে উঠেছেন। জানালেন, বার বার ফিরে আসবেন দিল্লিতে।

‘পুষ্পা’ মুক্তির এক বছর আগেই রশ্মিকা সই করেছিলেন প্রথম হিন্দি ছবিতে। যে ছবিতে সিদ্ধার্থ মলহোত্রর সঙ্গে জুটি বাঁধতে দেখা যাবে অভিনেত্রীকে। ছবির নাম ‘মিশন মঞ্জু’।

অন্য দিকে, দ্বিতীয় ছবি ‘গুডবাই’, যে ছবিতে সহ-অভিনেতা হিসাবে পেয়েছেন অমিতাভ বচ্চনকে, সেই ছবির প্রথম ‘লুক’ ইতিমধ্যেই দেখে ফেলেছেন দর্শকরা।

‘গুডবাই’ সম্পর্কে বলতে গিয়ে রশ্মিকা অমিতাভের সঙ্গে কাজ করার মূল্যবান অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে চান। জানান, অমিতাভ এক জন প্রকৃত শিক্ষক।

রাশমিকার কথায়,

‘বচ্চন স্যর আশ্চর্য মানুষ। যখন কাজ শুরু করলাম তখন জানতাম, তিনি অভিনেতা। বিদায় নেওয়ার পর উপলব্ধি করলাম, তিনি শিক্ষক।’

আমার অভিনয়শৈলী বদলে গিয়েছে কত! সবই তাঁর থেকে শিখেছি। তিনি আমার জীবনে বিশাল ভূমিকা পালন করেছেন। তাঁর সঙ্গে প্রথম হিন্দি ছবি করতে পেরে আমি ধন্য। আমিও স্পঞ্জের মতো, আমার সহ-অভিনেতার প্রতিভা শুষে নিই।

অমিতাভকে কাছ থেকে দেখব, আলাপ হবে… সে তো স্বপ্ন ছিল। আর এখন তাঁরই ছবির প্রচারে এসেছি। ভাবতে পারছি না!”

রাশমিকা জানান, তাঁর হিন্দি ছবিতে কাজ করতে চাওয়ার মূল কারণ দর্শকের ভালবাসা। বললেন, “সকলে চাইতেন, আমি বলিউডে ছবি করি। তা-ই ভাবলাম দেখাই যাক।”

‘পুষ্পা’ মুক্তি পাওয়ার পর রশ্মিকার জনপ্রিয়তা তুঙ্গে। শোনা যাচ্ছে, ইতিমধ্যেই নিজের পারিশ্রমিকও বাড়িয়ে দ্বিগুণ করে দিয়েছেন নায়িকা। এখনও পর্যন্ত বলিউডে একটি ছবিও মুক্তি পায়নি তাঁর। তবুও পরিচালকদের পছন্দের তালিকার প্রথম সারিতে তিনি।

‘জাতীয় ক্রাশ’ নিয়ে অভিনেত্রীকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, মানুষের ভালবাসা পেলে দায়িত্ব আরও বেড়ে যায়। সে ভাবেই কাজ করার চেষ্টা করবেন তিনি, আরও বেশি প্রশংসার লোভে।